মাগুরার এক তরুণীকে যৌনপল্লীতে বিক্রির চেষ্টা, গ্রেপ্তার ১

মাগুরা সদর

মাগুরা সংবাদ:

চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে তরুণীকে যৌনপল্লীতে বিক্রির সময় রফিক সরদার (৩৪) নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

সন্ধ্যায় রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া যৌনপল্লীর প্রধানগেট থেকে ওই তরুণীকে উদ্ধার করা হয়।

এ সময় রফিককে আটক করা গেলেও অন্য আসামি মজিবর কসাই (৫০) কৌশলে পালিয়ে যায়।

পুলিশ জানিয়েছে, রফিক গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়নের তাহের কাজীর পাড়া গ্রামের উম্বার সরদারের ছেলে এবং মজিবর রাজবাড়ী জেলার পাংশা উপজেলার নাদুরিয়া বাস্তপুর গ্রামের বাসিন্দা।

উদ্ধার হওয়া তরুণী জানায়, তার বাড়ি মাগুরা জেলায়। তার নানা গরু কেনা-বেচার ব্যবসা করেন। ব্যবসার কারণে পলাতক আসামি মজিবর কসাইয়ের সঙ্গে পরিচয় ও তার নানা বাড়িতে যাতায়াত ছিল। এ কারণে তার সঙ্গেও (উদ্ধার হওয়া তরুণী) মজিবরের সঙ্গে পরিচয় হয়। তিনি মাগুরায় মনিকা বিউটি পার্লারে কাজ করতেন। একদিন মজিবর তাকে বেতনের কথা জিজ্ঞাস করলে সে জানায় মাসে ৭ হাজার টাকা পায়। পরে মজিবর তার নানাকে ভালো বেতনে চাকরির প্রস্তাব দিলে তিনি ও তার নানা রাজি হয়।

এরপর গত ২০ ফেব্রুয়ারি সে তার নানার সঙ্গে টাঙ্গাইলে খালার বাড়িতে রওনা হয়ে দৌলতদিয়া ঘাটে আসলে মজিবর কসাই রফিক সরদারের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিয়ে জানান, উনি ভালো চাকরির ব্যবস্থা করে দেবেন। গত ২২ ফেব্রুয়ারি রফিক সরদার ফোনে তাদের জানায়, ভালো চাকরির ব্যবস্থা হয়েছে, বাসাও ঠিক করা হয়েছে। তারা যেন দ্রুত দৌলতদিয়ায় চলে আসে। তারা ওইদিন বিকেলেই দৌলতদিয়ায় চলে আসেন। এ সময় তার নানা পাশের দোকানে গেলে রফিক তাকে (তরুণী) দৌলতদিয়া যৌনপল্লীর প্রধান গেটে নিয়ে যায়। এ সময় তিনি তার নানার জন্য অপেক্ষা করতে বললে রফিক জানায়, তোমার নানা বাসা চেনেন, ওনি চলে আসবেন। অসুবিধা নেই ওখানে তোমার মতো আরও অনেক মেয়ে আছে। কিছু দূর এগোতেই সে বুঝতে পারে তাকে যৌনপল্লীতে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এ সময় ওই তরুণী চিৎকার করলে স্থানীয়রা এসে পুলিশকে খবর দেয়।

এ বিষয়ে গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি স্বপন কুমার মজুমদার জানান, খবর পেয়ে দ্রুত সময়ের মধ্যে পুলিশ ঘটনাস্থালে গিয়ে ওই তরুণীকে উদ্ধার ও একজনকে গ্রেপ্তার করে। ঘটনায় জড়িত অন্য আসামিকে গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে। এ বিষয়ে উদ্ধার হওয়া তরুণী বাদী হয়ে মানবপাচার প্রতিরোধ ও দমন আইনে মামলা দায়ের করেছেন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *