কান্না করছিলেন মা, বাবারও চোখ দিয়ে ঝরছিল পানি:মাগুরার সন্তান শহিদুল

শ্রীপুর

মাগুরা সংবাদ:

‘বয়স তখন মাত্র ১৬ বছর। চারিদিকে মুক্তিযুদ্ধের দামামা বাজছে। আহ্বান জানানো হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের। ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর ভাষণ শোনার পর থেকেই রক্ত যেন টগবগিয়ে উঠল। ভাবলাম বাড়িতে বসে থাকার আর সময় নেই। যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। স্বাধীন করতে হবে প্রিয় মাতৃভূমিকে।’

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে এ প্রতিবেদককে কথাগুলো বলছিলেন পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর সাথে অন্তত ১০টি সম্মুখ সমরে অংশগ্রহণকারী মাগুরার বীর মুক্তিযোদ্ধা গাজী শহিদুল ইসলাম। তিনি শ্রীপুর উপজেলার মদনপুর গ্রামের মৃত চাঁদ আলীর ছেলে।
বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী শহিদুল ইসলাম বলেন, মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের জন্য যখন মা-বাবার কাছ থেকে বিদায় চাই, তখন এক হৃদয়বিদারক পরিবেশের সৃষ্টি হয়। মা আমাকে বুকে জড়িয়ে ধরে হাউমাউ করে কাঁদতে লাগলেন। পাশে বাবার চোখ দিয়ে পানি গড়িয়ে পড়ছে।

‘মা বললেন, বাবা পাকিস্তান বাহিনীর সেনারা তোরে মারে ফেলবেনে। আমরা কী নিয়ে বাঁচব?’ উত্তরে বললাম, ‘তোমাদের সম্মান রক্ষার্থে এই প্রিয় মাতৃভূমিকে স্বাধীন করতে হবে, এই দেশকে শত্রুমুক্ত ও হানাদারমুক্ত করতে হবে। আমাকে যুদ্ধে যেতেই হবে।’ সেদিন অনেক কষ্টে মা-বাবার কাছ থেকে বিদায় নিয়েছিলাম।

 

 

 

সূত্রে প্রাপ্ত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *