মাগুরায় গাছির অভাবে হারিয়ে যাচ্ছে খেজুর রসের ঐতিহ্য

কৃষি মাগুরা সদর

মাগুরা সংবাদ:

 

 

মাগুরায় খেজুর গাছ কাটা গাছির অভাবে হারিয়ে যেতে বসেছে খেজুর রসের ঐতিহ্য। যুগ যুগ ধরে এই ঐতিহ্য ধরে রেখেছিল  মাগুরাবাসী। এখন ইতিহাস।

আগে শরৎকাল আসতে না আসতেই গ্রামগঞ্জে খেজুর গাছ তোলার ধুম পড়ে যেত। বিভিন্ন অঞ্চল থেকে দলে দলে নারী-পুরুষ এসে এসব এলাকায় অস্থায়ী নিবাস গড়ত। তাদের সঙ্গে থাকত রস থেকে গুড় তৈরির নানা সরঞ্জাম। তারা বিভিন্ন আকৃতির খুরি পাটালি, প্লেট পাটালি, নারিকেল পাটালিসহ আকর্ষণীয় ও সুমিষ্ট পাটালি তৈরি করত। এ ছাড়া মাটির তৈরি ভাড় ভর্তি নালি গুড়, ঝোলা গুড় ও দানা গুড় তৈরি করে নিজেদের প্রয়োজন মিটিয়ে স্থানীয় বাজারে বিক্রি করত। দেশের বিভিন্ন জেলায় সরবরাহ করত।  কিন্তু এখন কমেছে এই আয়োজন এবং উদ্যম।

শীত মৌসুম এলেই গ্রাম এলাকায় গুড়ের তৈরি পিঠা পায়েস খাওয়ার ধুম পড়ে যায়। পৌষ মাসের হাড় কাঁপানো শীত উপেক্ষা করে গাছি গাছ থেকে রস পেড়ে তা থেকে গুড়, পাটালিসহ নানা ধরনের পিঠা-পুলি তৈরি করে। শীতের সকালে নির্ভেজাল টাটকা খেজুরের রস খাওয়ার মজাই আলাদা। কিন্তু বর্তমানে নানা স্থানে শিল্প কারখানা গড়ে ওঠার কারণে এবং গাছির অভাবে সেই খেজুর বাগান আর দেখা যায় না।

কামাল নাম করে একজন মাগুরা সংবাদকে বলেন, আমাদের এলাকায় অসংখ্য খেজুর গাছ ছিল। এখন নেই। সময়ের পরিবর্তনে আমাদের এখন গুড় কিনে খেতে হয়। অনেক গাছিরা খেজুর গাছ কাটতেন। এদের মধ্যে অনেকেই মারা গেছেন। যারা জীবিত আছেন তারা এখন আর গাছ কাটেন না। এখন বিকেল হলেই গাছির গাছ কাটার ব্যস্ততা লক্ষ করা যায় না। রাস্তার ধারের গাছগুলোর দিকে তাকালেই বোঝা যায় কত বছর গাছগুলো কেউ কাটে না। কাটার জন্য গাছির অভাবে গাছগুলো জঙ্গলে পরিণত হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *