শ্রীপুরের গড়াই নদীতে মশারী জালের পাটা বাঁধ দিয়ে অবাধে মাছ নিধন

শ্রীপুর

মাগুরা সংবাদ :

আশরাফ হোসেন পল্টু,শ্রীপুর,মাগুরা:


দেশে করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারনে সরকারি অফিস বন্ধ থাকার সুযোগে এলাকার একশ্রেণির অসাধু মৎস্যজীবিরা সুযোগ বুঝে গড়াই নদীতে আড়াআড়িভাবে মশারী জালের মাধ্যমে শক্ত পাটা বাঁধ দিয়ে ছোট-বড় বিভিন্ন প্রজাতির মাছ ও মাছের রেণু অবাধে নিধন করছে ।
মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার গয়েশপুর ইউনিয়নের লাঙ্গলবাঁধ বাজার এলাকা থেকে শুরু করে নাকোল ইউনিয়নের রাজধরপুর পর্যন্ত গড়াই নদীতে অসংখ্য মশারী জালসহ বাঁশ ও বাঁশের চটা দিয়ে পাটা তৈরী করে নদীতে আড়াআড়িভাবে বাঁধ দিয়ে মাছ শিকার করা হচ্ছে । এছাড়াও অত্যন্ত ঘন মিহি দীর্ঘ মশারী জাল দিয়ে নদীর বিস্তৃর্ণ এলাকা ঘিরেও মাছ শিকার করা হচ্ছে অহরহ । এ প্রক্রিয়ায় মাছ শিকারের ফলে মা মাছসহ সকল প্রকার মাছ নিধন তো হচ্ছে বটেই ! বরং অপরদিকে মাছের রেণুও ধ্বংশ হচ্ছে ব্যাপকহারে । বিশেষকরে ফাল্গুণ,চৈত্র ও বৈশাখ মাসে যখন নদীর পানি শুকায়ে যায় ঠিক তখনই এ মৎস্য খেকোরা বেপরোয়া হয়ে ওঠে । মৎস্যজীবিদের মধ্যে অধিকাংশ মৎস্যজীবি প্রভাবশালী ব্যক্তিদের মদদপুষ্ট হয়ে তাদের ছত্রছায়ায় থেকে এধরণের অপকর্ম করছে। তবে সরকারি নজরদারীর পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট এলাকার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান,ইউপি সদস্য ও সরকার দলীয় নেতা-কর্মীরা এবিষয়ে এগিয়ে আসার প্রয়োজন । নইলে অদূর ভবিষ্যতে নদীর প্রাকৃতিক মাছ বিলুপ্তি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
উপজেলার ১নং গয়েশপুর ইউনিয়নের ইউপি সদস্য ওয়াহিদুজ্জামান লিটু জানান, বৃহত্তর গড়াই এবং মাঝারী কুমার নামে দুটি নদী শ্রীপুর উপজেলার বিস্তৃর্ণ এলাকা জুড়ে প্রবাহিত । নদীতে এখনও যে পরিমান প্রাকৃতিক মাছ রয়েছে তা যদি সংরক্ষণ করা হয় তাহলে এলাকার মাছের চাহিদা পুরণ করেও অন্য জেলাতে বিপুল পরিমান মাছ রফতানি করা সম্ভব । আর যদি সংরক্ষণ করা না হয় তাহলে অদূর ভবিষ্যতে নদীর প্রাকৃতিক মাছ খাওয়া তো দূরের কথা মাছ দর্শনই দুঃষ্প্রাপ্য হয়ে যাবে। তাই কর্তব্য হবে নদী ও নদীর মাছ রক্ষায় প্রশাসনের পাশাপাশি ইউপি চেয়ারম্যান ও সরকার দলীয় নেতা-কর্মীদের এগিয়ে আসা এবং যারা নিয়ম বহির্ভূতভাবে নদীতে মাছ শিকার করছে তাদের বিরুদ্ধে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা ।
এ বিষয়ে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা(অতিরিক্ত দায়িত্ব) মোঃ শরীফ হাসান সোহাগ বলেন,গত বছর মোবাইল কোর্টে মাধ্যমে এ ধরনের পাটা বাঁধ উচ্ছেদ করা হয়েছিল কিন্তু এবছর করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারনে অফিস ছুটি থাকার কারণে হয়তবা যে কেউ সেই সুযোগে পাটা বাঁধ ব্যবহার করে মাছ শিকার করলেও করতে পারে । তবে বিষয়টি আমার জানা নেই । সুযোগ বুঝে যে কোন সময় ঘটনাস্থলে গিয়ে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *