মাগুরায় জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে বসতঘরে হামলা-ভাংচুর

মাগুরা সদর

মাগুরা সংবাদ :

মাগুরা সদর উপজেলার বেরইল পলিতা ইউনিয়নের মনিরামপুর গ্রামে ১৬ শতাংশ জমি কেনাবেচাকে কেন্দ্র করে মারিমারি ও বাড়িঘর ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। মনিরামপুর বাজারে সোমবার (১৩ মে) সন্ধ্যায় স্থানীয় সামাজিক মাতব্বর মোঃ মুরাদ মোল্যা (৪০) ও রেজাউল শেখ (৩৮) এর দলীয় সমর্থকদের মধ্যে এই মারিমারি সংঘটিত হয়।

ঘটনার বিষয়ে মুরাদ মোল্যা জানান, বছর ছয়েক আগে তার ১৬ শতাংশ জমি বিক্রি করেন একই গ্রামের মৃত সালাম ফকিরের ছেলে হায়দার ফকিরের কাছে। তখন ওয়ারেশ সূত্রে ওই জমির পরিমাণে মুরাদ মোল্লা হায়দার ফকিরকে অন্য জমির চাষের অনুমতি দেন।

দীর্ঘদিন ওই জমি চাষ করার পরে এখন হায়দারের পরিবার তার ক্রয় করা জমি আবার মুরাদ মোল্যাকে কিনতে বলেন। কিন্তু তিনি টাকার সংকটে কিনতে অনিহা জানালে হায়দারের স্ত্রীর ভাই শহিদ্দুল্লাহ ফকির মনিরামপুর বাজার থেকে মুরাদের উপর চড়াও হলে দুজনের মধ্যে হাতাহাতি হয়। এই খবর গ্রামে ছড়িয়ে পড়লে হায়দার ফকিরের মাতব্বর মোঃ রেজাউল ও মুরাদের দলীয় লোকেদের মধ্যে মারামারি সংঘটিত হয়।

এসময় রেজাউল সমর্থকরা মুরাদের ভাই ও তার দলীয় লোকের ৪ টা বাড়িতে ভাংচুর ও লুটপাট চালায় বলে অভিযোগ করেন তিনি। শহিদুল্লাহর উপর এসব অভিযোগের বিষয়ে তিনি শহিদুল্লাহ বলেন, তার দুলাভাই হায়দার হোসেন বর্তমানে বিদেশে থাকায় হায়দার তার জমি বিক্রির জন্য তার উপর দায়িত্ব দেন।

ভাংচুর ও লুটপাট চালানো বাড়ির মালিক মোঃ জমির মোল্যার স্ত্রী ববিতা খাতুন, কামরুল মোল্যার স্ত্রী মিনা সহ হামলা হওয়া বাড়ির লোকেরা অভিযোগ করে বলেন, সোমবার আনুমানিক সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে রেজাউল মাতব্বরের দলের লোকেরা এসে হঠাৎ বাড়িঘর কোপাতে থাকে এবং ঘরে থাকা টাকা পয়সা নিয়ে যায়। ঘর থেকে ড্রয়র ভেঙে টাকা পয়সা লুট করে নিয়ে যায় বলেও অভিযোগ করেন মিনা বেগম। হামলার সময় বাড়িতে কোন পুরুষলোক ছিলো না তাই শিশু সন্তানদের নিয়ে তারা অনেক ভয়ে ছিলেন বলে জানান তারা।

এসব অভিযোগের বিষয়ে স্থানীয় সামাজিক মাতব্বর রেজাউল মোল্যা বলেন, তিনি ওই দিন মুরাদ ও শহিদুল্লাহর মধ্যে কথা কাটাকাটি হওয়ার সময় বাজারে এক সঙ্গেই ছিলেন। কিন্তু মারামারি ও বাড়িঘর ভাংচুর হয় পশ্চিম পাড়ায়। তাই এসব বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না বলে সাফ জানিয়ে দেন।

এই ঘটনায় ২ দিন পরে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান মুরাদ মোল্যা। ঘটনার দিন স্থানীয় ফাড়ির পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন বলে জানা গেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *