মাগুরায় ধারালো চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে জখম: আহত, ২

মাগুরা সদর

মাগুরা সংবাদঃ

শহিদুজ্জামান চাঁদঃ

মাগুরায় স্ত্রীকে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করেছে এক যৌতুক লোভি স্বামী। এ সময় ধারালো অস্ত্রের কোপে আহত হয়েছে ওই গৃহবধূসহ তার নাবালক বোনের ছেলে। আহতদের মাগুরা ২৫০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
মাগুরা শহরতলীর নিজনান্দুয়ালী গ্রামের হাফিজ বিশ্বাসের মেয়ে গৃহবধূ ফাতেমা খাতুন অভিযোগ করে বলেন, ছয় বছর আগে ঝিনাইদহের টিকারী গ্রামের আবু বক্কার-এর পুত্র আবু সাঈদের সাথে বিয়ে হয় তার । বিয়ের পর থেকে বিভিন্ন সময় শ্বশুর বাড়ির লোকেদের নির্যাতনের কারনে গত তিন বছর তারা স্বামী-স্ত্রী মাগুরা শহরের সাজিয়াড়া এলাকায় ভাড়া বাসায় বসবাস করে আসছেন। এ সময় ব্যবসার জন্য বাবার বাড়ি থেকে বিভিন্ন সময়ে তিনি স্বামীকে নগদ ৪ থেকে ৫ লক্ষ টাকা এনে দেন। সম্প্রতি গোপনে দুই মাস আগে আরো একটি বিয়ে করেন আবু সাঈদ । যা নিয়ে তাদের মধ্যে মনোমালিন্য সৃষ্ট হলে সাইদ মাগুরার বাসায় আসা যাওয়া প্রায় বন্ধ করে দেন। সম্প্রতি তার বোন বিদেশ থেকে বাড়ি আসার খবরে শুক্রবার রাতে মাগুরার বাসায় এসে তার বিদেশ ফেরৎ বোনের কাছ থেকে দুই লক্ষ টাকা যৌতুক এনে দিতে ফাতেমাকে চাপ সৃষ্টি করেন স্বামী আবু সাঈদ । কিন্তু’ তিনি অপারগতা প্রকাশ ও দ্বিতীয় বিয়ের বিষয়ে চাপ দিলে রাতেই মারধরের শুরু করলে প্রতিবেশীরা এসে থামিয়ে দেয়। শনিবার ভোর হতেই স্বামীর ছোট ভাই, ভাগ্নেসহ কয়েকজন মোটরসাইকেলে এসে হাজির হয়, ফাতেমা দরজা খুলে দিতেই কিছু বুঝে ওঠার আগেই স্বামী সাঈদ ও তার ভাই রুলেল, ভাগ্নে মনির, বোনের জামাই রিপন তাকে মারধরসহ ধারালো চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে, এ সময় তার নাবালক ভাগ্নে মিতুল ঠেকাতে গেলে তাকেও কুপিয়ে আহত করে তারা। তারা দুজনেই বর্তমানে মাগুরা ২৫০ শয্যা হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
এ ব্যাপারে তিনি লোক দিয়ে মাগুরা সদর থানায় একটি অভিযোগপত্র দাখিল করেছেন।
হাসাপালের সার্জারি বিশেষজ্ঞ ডাঃ সফিউর রহমান বলেন, ধারালো অস্ত্রের একাধিক কোপে দুই জনকে গুরুত্বর আহত করা হয়েছে। তাদের চিকিৎসা চলছে।
সদর থানার ওসি তদন্ত সাইফুল ইসলাম বলেন, তারা অভিযোগের বিষয়টি তদন্ত করে দেখছেন। পরবর্তীতে মামলা হলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *